সর্বশেষ

হযরত ফাতিমা (রাঃ) বালিকা ফাজিল মাদরাসায় আলিম পরীক্ষার্থীদের দোয়া মাহফিল সম্পন্ন

হযরত ফাতিমা (রাঃ) বালিকা ফাজিল মাদরাসায় আলিম পরীক্ষার্থীদের দোয়া মাহফিল সম্পন্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

চকরিয়ার বিএমচরের বেতুয়াবাজারস্থ হযরত ফাতিমা (রাঃ) বালিকা ফাজিল (ডিগ্রি) মাদরাসার ২০২৪ সালের আলিম পরীক্ষার্থীদের দোয়া মাহফিল, উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান প্রধান ও শ্রেষ্ঠ শ্রেণি শিক্ষকের সংবর্ধনা এবং ৬ষ্ঠ শ্রেণির নবাগত শিক্ষার্থীদের বরণ অনুষ্ঠান মাদরাসা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

মঙ্গলবার (১১জুন) মাদরাসা অধ্যক্ষ মাওলানা মোহাম্মদ কবির হোছাইনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মাদরাসা গভর্নিং বডির সভাপতি আলহাজ্ব মনজুরুল কাদের টুক্কু। এসময় মাদরাসার বিভিন্ন পর্যায়ে শিক্ষক-শিক্ষিকা এবং আলিম পরীক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। 

অতিথির আলোচনা শেষে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ-২০২৪-এ উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান প্রধান অধ্যক্ষ মাওলানা মোহাম্মদ কবির হোছাইন এবং শ্রেষ্ঠ শ্রেণি শিক্ষক এ.এস.এম মঈন উদ্দিনের হাতে সংবর্ধনার স্বীকৃতি স্বরূপ মাদরাসার পক্ষ থেকে বিশেষ সম্মাননা স্মারক তুলে দেয়া হয়। 

পরে ২০২৪সালের আলিম পরীক্ষার্থীদের সফলতা ও শারীরিক সুস্থতা কামনা করে বিশেষ দোয়া মুনাজাত পরিচালনা করা হয়।

কোনাখালীতে পরিবেশবান্ধব গ্রাম বিনির্মাণে জনসচেতনতামূলক র‌্যালি ও বৃক্ষরোপন

কোনাখালীতে পরিবেশবান্ধব গ্রাম বিনির্মাণে জনসচেতনতামূলক র‌্যালি ও বৃক্ষরোপন

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

চকরিয়ার কোনাখালী সিকদারপাড়ায় পরিবেশবান্ধব গ্রাম বিনির্মাণে জনসচেতনতামূলক র‌্যালি, আলোচনা ও বৃক্ষরোপন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (৮জুন) এ কর্মসূচির আয়োজন করে ব্রেকিং দ্য সাইলেন্স অক্সফ্যাম বাংলাদেশ এবং অষ্ট্রেলিয়ান এইড-এর সহায়তায় “ব্লু ইকোনমি এ্যান্ড  ইনক্লুসিভ ডেভেলপমেন্ট ফর ক্ল্যাইমেট জাস্টিস” প্রকল্প। প্রজেক্ট ম্যানেজার মিরাজ উদ্দীন তালুকদারের সার্বিক তত্বাবধানে সিকদারপাড়া গ্রামের সকল শ্রেণির মানুষকে সঙ্গে নিয়ে পরিবেশ বান্ধব গ্রাম তৈরি, জনসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য কমিউনিটি ক্যাম্পেইন কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। এসময় ফেমিনিষ্ট ক্ল্যাইমেট জাস্টিস অফিসার মিফতা বিনতে ইউসুফ ও ফিল্ড অফিসার আব্দুল হান্নানসহ সহযোগি সংস্থার অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

র‌্যালি ও চারা রোপনকালে প্রজেক্ট ম্যানেজার মিরাজ উদ্দীন তালুকদার বলেন, বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলীয় অঞ্চল চকরিয়া উপজেলার কোনাখালী ইউনিয়নের সিকদারপাড়া গ্রামের জনগোষ্ঠীর জন্য সুষম বাস্তুতন্ত্র (ইকোসিস্টেম) ব্যবস্থা এবং পরিবেশ বান্ধব গ্রাম এবং জেন্ডার ন্যায্যতা ভিত্তিক জলবায়ু ঐক্যমত গড়ে তোলার লক্ষ্যে ব্রেকিং দ্য সাইলেন্স কাজ করছে। সেই সাথে জলবায়ু পরিবর্তন জনিত ক্ষয়-ক্ষতি এবং প্রাকৃতিক সম্পদের সুষ্ঠ ব্যবহার সুনিশ্চিত করে নারী, পুরুষ এবং অন্যান্য প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর অধিকার নিশ্চিতকরণ ও সবুজ ব্যবসায় বিনিয়োগ সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষে প্রকল্পের বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে।

তিনি বলেন, ব্রেকিং দ্য সাইলেন্স অক্সফ্যাম বাংলাদেশ এবং অষ্ট্রেলিয়ান এইড-এর সহায়তায় “ব্লু ইকোনমি এ্যান্ড ইনক্লুসিভ ডেভেলপমেন্ট ফর ক্ল্যাইমেট জাস্টিস-(বিআইডিফোরসিজে)” প্রকল্পের মাধ্যমে চকরিয়া উপজেলার কোনাখালী ইউনিয়নের সিকদারপাড়া গ্রামের জেন্ডার ন্যায্যতা ভিত্তিক জলবায়ু আন্দোলন বিষয়ক প্রশিক্ষণ, সচেতনতামূলক সেশন, ইয়োথ নেটওয়ার্ক গঠনসহ বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে চলেছে। ওই গ্রামের বড় সমস্যা ব্যবহার যোগ্য সুপেয় পানির অভাব এবং আবহাওয়া-জলবায়ু পরিবর্তন জনিত বাস্তুতন্ত্র (ইকোসিস্টেম) বিনষ্ট ও ক্ষয়ক্ষতি। পাশাপাশি গ্রামের সকল শ্রেনির মানুষদের ঐক্যবদ্ধ করে তাদের দক্ষতা বৃদ্ধি, বৃক্ষ রোপন, পরিবেশ সুরক্ষায় ক্ষতিকর কাজ থেকে বিরত থাকা, বাড়ির আঙ্গিনায় সবজি বাগান, সবুজ বনায়ন গ্রামবাসী একত্রিত হয়ে এ কার্যক্রম বাস্তবায়নে তাদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ প্রশংসার দাবি রাখে।   

উল্লেখ্য, ব্রেকিং দ্য সাইলেন্স অক্সফ্যাম বাংলাদেশ এবং অষ্ট্রেলিয়ান এইড-এর সহায়তায় “ব্লু ইকোনমি এ্যান্ড  ইনক্লুসিভ ডেভেলপমেন্ট ফর ক্ল্যাইমেট জাস্টিস” নামক একটি প্রকল্প কক্সবাজার জেলার মহেশখালী ও চকরিয়া উপজেলা, সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর ও আশাশুনি উপজেলা এবং খুলনা জেলার কয়রা উপজেলায় বাস্তবায়ন করছে। প্রকল্পটি উপকূলীয় এলাকার জনগোষ্ঠী-বিশেষ করে নারী এবং প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবন ও জীবিকার ক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত গ্রহণে সক্ষমতা বৃদ্ধি, জেন্ডার ন্যায্যতা, বাস্তুতন্ত্র (ইকো-সিস্টেম) ব্যবস্থপনা এবং  জলবায়ু পরিবর্তন জনিত ক্ষয়-ক্ষতি পুনরুদ্ধারে সহায়তা এবং তাদের অধিকার বাস্তবায়নে কাজ করছে। বিশেষ করে উপকূলীয় অঞ্চলের নারী এবং প্রান্তিক জনগোষ্ঠী যে সকল সমস্যায় রয়েছে, সে সকল সমস্যা সমাধানে প্রকল্পের উদ্যোগসমূহ “জেন্ডার ন্যায্যতা ও জলবায়ু আন্দোলন বিষয়ক প্রশিক্ষণ, সচেতনতামূলক সেশন”; বাস্তুতন্ত্র (ইকোসিস্টেম) পুনরুদ্ধারে পুকুর সংস্কার, বৃক্ষ রোপন এবং পরিবেশ উন্নয়নসহ সুপেয় পানির ব্যবস্থা। 


চকরিয়ার চরণদ্বীপ ভূমিহীন কৃষি সমবায় সমিতির ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন সম্পন্ন

চকরিয়ার চরণদ্বীপ ভূমিহীন কৃষি সমবায় সমিতির ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন সম্পন্ন

শাহজালাল শাহেদ (চকরিয়া টাইমস) : 

চকরিয়া উপজেলার চিরিংগা ইউনিয়নের চরণদ্বীপ ভূমিহীন কৃষি সমবায় সমিতি লিমিটেড (নিবন্ধন-৫৮৯১ চট্ট) ব্যবস্থাপনা কমিটির ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন-২০২৪ ব্যাপক উৎসবমুখর পরিবেশের মধ্যদিয়ে স্থানীয় বিদ্যালয় কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

শনিবার (৮জুন) এ নির্বাচনে সভাপতি-সম্পাদকসহ ১২টি পদের বিপরীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন ১৯জন প্রার্থী। আইন শৃংখলা বাহিনীর উপস্থিতিতে সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোটারেরা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। 

ভোট গণনা শেষে আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষণা করেন চকরিয়া উপজেলা সমবায় অফিসার মো. জাহাঙ্গীর আলম। এতে চেয়ার প্রতীক নিয়ে ৩৫০ ভোট পেয়ে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন আকতার হোছাইন। 

চাকা প্রতীক নিয়ে ৩০০ ভোট পেয়ে সহ-সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন ফরিদুল আলম। আনারস প্রতীক নিয়ে ৩১১ ভোট পেয়ে সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন নুরুল আলম। 

এছাড়া সদস্য পদে যথাক্রমে; আবদুল গণি (আম প্রতীকে ২৮৫ ভোট), বশির আহমদ (কবুতর প্রতীকে ২৪৭ ভোট), আবুল হোছাইন (বাঘ প্রতীকে ২৪১ ভোট), কফিল উদ্দিন (টিউবওয়েল প্রতীকে ১৯৮ ভোট), ছৈয়দ আহমদ (চশমা প্রতীকে ১৯৭ ভোট), মোহাম্মদ ইউছুফ (মোরগ প্রতীকে ১৯১ ভোট), খলিলুর রহমান (গাভী প্রতীকে ১৮৬ ভোট), আবদুল জলিল (ডাব প্রতীকে ১৮১ ভোট), মোজাম্মেল হক (ফুটবল প্রতীকে ১৭০ ভোট) নির্বাচিত হন। 

সার্বিক নির্বাচন কার্যক্রম পরিচালনায় দায়িত্ব পালন করেন চকরিয়া উপজেলা সমবায় অফিসার জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে উপজেলা সহকারী সমবায় অফিসার মো. আবু তাহের ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য এহেছানুল কবির।  

চকরিয়ায় নূরানী কাফেলার উদ্যোগে এসএসসি ও দাখিলে জিপিএ-৫প্রাপ্তসহ কৃতী শিক্ষার্থী সংবর্ধনা

চকরিয়ায় নূরানী কাফেলার উদ্যোগে এসএসসি ও দাখিলে জিপিএ-৫প্রাপ্তসহ কৃতী শিক্ষার্থী সংবর্ধনা

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

চকরিয়া উপজেলার ঐতিহ্যবাহী স্বেচ্ছাসেবী ও সামাজিক সংগঠন ভাঙ্গারমুখ নূরানী কাফেলার উদ্যোগে ২০২৪সালে এসএসসি ও দাখিলে জিপিএ-৫প্রাপ্তসহ কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শুক্রবার (৭জুন) মজিদিয়া দারুচ্ছুন্নাহ পৌর দাখিল মাদরাসা মিলনায়তনে সম্পন্ন হয়েছে। 

নূরানী কাফেলার সভাপতি সৈয়দ মুহাম্মদ রাসেলের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ এহেছানুল হকের সঞ্চালনায় শুরুতে পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত করেন হাফেজ শহিদুল ইসলাম সুমন। 

বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও ইসলামী আলোচক কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের উপাধ্যক্ষ হাসান মুহাম্মদ ইয়াছিন। 

এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগি ও সমাজসেবক মো. আরিফুল কবির, মো. ফখরুল ইসলাম, ছাত্রনেতা ইবরাহিম ফারুক সিদ্দিকী ও রাইজিং স্টার ফাউন্ডেশনের সভাপতি রায়হানুল ইসলাম। 

অনুষ্ঠানে কৃতী শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে সাঈদুর রহমান আকাশ ও হামিম জন্নাত কুমকুম বক্তব্য রাখেন। এসময় সিনিয়র সহ-সভাপতি এম. রুহুল আমিন রুবেল, অর্থ সম্পাদক জালাল উদ্দিন কিবরিয়াসহ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা ও সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। 

পরে এসএসসি ও দাখিলে জিপিএ-৫প্রাপ্তসহ মেধাবি শিক্ষার্থীদের হাতে সংগঠনের তরফ থেকে কৃতীত্বের স্বীকৃতি স্বরূপ বিশেষ সম্মাননা স্মারক তুলে দেন অনুষ্ঠানের অতিথিবৃন্দ।


গণমুখী ও জনবান্ধব বাজেট পেশ করায় চকরিয়ায় আওয়ামী লীগের আনন্দ মিছিল

গণমুখী ও জনবান্ধব বাজেট পেশ করায় চকরিয়ায় আওয়ামী লীগের আনন্দ মিছিল

চকরিয়া টাইমস : 

মহান জাতীয় সংসদে সময়োপযোগী, গণমুখী ও জনবান্ধব বাজেট (২০২৪-২৫) পেশ করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়ে আনন্দ মিছিল করেছে চকরিয়া উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগ। 

বৃহস্পতিবার (৬জুন) বিকালে চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক এমপি আলহাজ্ব জাফর আলমের নেতৃত্বে চকরিয়া পৌরশহরের সিস্টেম কমপ্লেক্স চত্বর থেকে এক বিশাল মিছিল বের করা হয়।

মিছিলটি পৌরশহরের চিরিঙ্গা চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় সিস্টেম কমপ্লেক্স চত্বরে সমাবেশে মিলিত হয়।

এসময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু মুছা, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটু, সাধারণ সম্পাদক লায়ন আলমগীর চৌধুরীসহ অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

চকরিয়ায় ব্রেকিং দ্যা সাইলেন্সের সহযোগিতায় বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালিত

চকরিয়ায় ব্রেকিং দ্যা সাইলেন্সের সহযোগিতায় বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

চকরিয়ায় নানান কর্মসূচির মধ্যদিয়ে পালিত হয়েছে বিশ্ব পরিবেশ দিবস-২০২৪। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল; “করবো ভূমি পুনরুদ্ধার, মরুময়তা, অর্জন করতে হবে মোদের খরা সহনশীলতা”। 

বুধবার (৫জুন) চকরিয়া উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ব্রেকিং দ্যা সাইলেন্স ও কোডেকসহ বিভিন্ন বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সহযোগিতায় দিনব্যাপি বর্ণাঢ্য কর্মসূচির মধ্যে ছিল- কুইজ, র‌্যালি, আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণ ও বৃক্ষরোপণ। 

দিবসটি উপলক্ষে সকাল ১১টায় উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি উপজেলা পরিষদস্থ গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে মোহনা মিলনায়তনে আলোচনা সভায় মিলিত হয়। 

চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ফখরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও উপজেলা স্কাউটসের সাধারণ সম্পাদক মাস্টার আনছারুল করিমের সঞ্চালনায় শুরুত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ব্র্যাকের ব্রেকিং দ্যা সাইলেন্স প্রকল্পের ফেমিনিস্ট ক্লাইমেট জাস্টিস অফিসার মিফতা বিনতে ইউসুফ। 

অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. আবু হাসনাত সরকার, বাংলাদেশ বেতারের প্রতিনিধি মাস্টার শাহ মোহাম্মদ জাহেদ, পরিবেশ সংগঠক সাইদুল হক প্রমুখ। 

এসময় উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মো. আবদুল মতিন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. নজরুল ইসলাম, দৈনিক বাংলাদেশের আলো পত্রিকার প্রতিনিধি শাহরিয়ার মাহমুদ রিয়াদ, চকরিয়া কেন্দ্রীয় উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক মো. ইমরানুল ইসলামসহ বিভিন্ন বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার প্রতিনিধি, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক প্রতিনিধি ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। 

আলোচনা শেষে সকালে শিক্ষার্থীদের নিয়ে অনুষ্ঠিত কুইজ প্রতিযোগিতায় প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন অতিথিবৃন্দ। 

পরে বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে অতিথিবৃন্দ আনুষ্ঠানিকভাবে একাধিক ফলদ, বনজ ও ঔষুধি গাছের চারা রোপণ করেন এবং উপস্থিত শিক্ষার্থীদের মাঝে সহযোগি সংস্থা ব্রেকিং দ্যা সাইলেন্স ও কোডেকের পক্ষ থেকে বিভিন্ন প্রজাতির ফলদ, বনজ ও ঔষুধি গাছের চারা বিতরণ করা হয়। 

চকরিয়া-পেকুয়ায় পুকুরে ডুবে তিন কন্যা শিশুর মৃত্যু

চকরিয়া-পেকুয়ায় পুকুরে ডুবে তিন কন্যা শিশুর মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক : 


চকরিয়া ও পেকুয়া উপজেলায় গত ৩৬ ঘণ্টায় পুকুরের পানিতে ডুবে গিয়ে তিন কন্যা শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে সংশ্লিষ্ট পরিবারসহ এলাকা জুড়ে শোকের ছায়া নেমে আসে। 

রোববার (২জুন) দুপুরে চকরিয়া পৌরসভার পালাকাটা গ্রামে নানার বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে পুকুরে ডুবে মোবাশ্বেরা জান্নাত আরুয়া নামে দুই বছরের এক শিশু মারা গেছে। 

শিশু আরুয়া চকরিয়া পৌরসভা ৭নং ওয়ার্ড ফোরকানিয়া মাদরাসাপাড়ার বাসিন্দা হারবাং হামেদিয়া দাখিল মাদরাসার শিক্ষক মোবারক হোসেনের মেয়ে। 

একইদিন রোববার সন্ধ্যায় স্থানীয় মসজিদুন নূরাঈন জামে মসজিদ মিলনায়তনে শিশু আরুয়ার নামাযে জানাযা শেষে মসজিদ সংলগ্ন কবরস্থানে লাশ দাফন কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়। 

অন্যদিকে আগেরদিন শনিবার (১জুন) পেকুয়া উপজেলার বারবাকিয়া ইউনিয়নের কাদিমাকাটা গ্রামে পুকুরের পানিতে ডুবে জান্নাতুল মাওয়া (৪) ও সিজাত মনিরা (৩) নামে দুই কন্যা শিশুর মৃত্যু হয়েছে। তারা সম্পর্কে খালা-ভাগনি। শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। 

জান্নাতুল মাওয়া পেকুয়া বারবাকিয়া ইউনিয়নের কাদিমাকাটা এলাকার জহিরুল আলমের মেয়ে এবং তারই নাতনি সিজাত মনিরা টৈটং ইউনিয়নের মধুখালী গ্রামের বেলাল উদ্দিনের মেয়ে বলে জানা গেছে।


খোদাভীরু নেতৃত্ব তৈরির মাধ্যমে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে জামায়াত বদ্ধপরিকর : হামিদ আযাদ

খোদাভীরু নেতৃত্ব তৈরির মাধ্যমে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে জামায়াত বদ্ধপরিকর : হামিদ আযাদ

বিশেষ প্রতিবেদক : 

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল ও সাবেক এমপি এএইচএম হামিদুর রহমান আযাদ বলেছেন, প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ আজ সৎ, দক্ষ ও খোদাভীরু নেতৃত্বের অভাবে গভীর সংকটে নিপতিত। দুর্নীতি, অপশাসন ও গণতন্ত্রহীনতার কারণে সঠিক নেতৃত্বের বিকাশ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। উন্নত, সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে হলে সৎ, দক্ষ ও খোদাভীরু নেতৃত্বের কোন বিকল্প নেই। তাই জামায়াতে ইসলামী সমাজে খোদাভীরু নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠার কাজ আঞ্জাম দিয়ে যাচ্ছে। শুধু বাংলাদেশ নয় বিশ্বব্যাপী নেতৃত্ব দেয়ার উপযোগী জনবল তৈরি করতে  জামায়াতের উদ্যোগ ও প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। 

জামায়াতে ইসলামী কক্সবাজার জেলা শাখার উদ্যোগে আয়োজিত ২দিনব্যাপী (৩০ ও ৩১মে) উপজেলা কর্মপরিষদ সদস্য শিক্ষাশিবির সম্পন্ন হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। 

কক্সবাজার জেলা আমীর অধ্যক্ষ মাওলানা নূর আহমদ আনোয়ারীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শিক্ষাশিবিরে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা মুহাম্মদ শাহজাহান ও এডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের। 

প্রধান অতিথি হামিদুর রহমান আযাদ আরো বলেন, বাংলাদেশে আজ রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, গণতান্ত্রিক , নৈতিক ও ধর্মীয় মূল্যবোধের অবক্ষয় প্রকট আকার ধারণ করেছে। সমাজ এবং রাষ্ট্রের সকল পর্যায়ে এসকল মূল্যবোধ অবক্ষয়ের সকল আয়োজন সক্রিয়। এহেন পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে সমাজ ও রাষ্ট্রের সকল স্তরে খোদাভীরু নেতৃত্ব তৈরি ও প্রতিষ্ঠায় জামায়াতে ইসলামী অগ্রণি ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। 

শিক্ষাশিবিরে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মদ শাহজাহান বলেন, জামায়াতে ইসলামীর প্রত্যেক দায়িত্বশীল হবে সকলের জন্য অনুকরণীয় মডেল। পরকালীন জবাবদিহিতার অনুভূতি নিয়ে ইসলামী আন্দোলনের কাজ ইহসানের সাথে পালন করতে হবে। মজলুম মানবতার মুক্তির কণ্ঠস্বর হিসেবে সমাজের সকল স্তরে দায়িত্বশীলদের বিচরণ অব্যাহত রাখতে হবে। 

সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল এডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের বলেন, সংগঠন সম্প্রসারণ ও মজবুতি অর্জনে দায়িত্বশীলদেরকে সময়োপযোগী ও কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। নিজেদের মান উন্নয়ন ও সংরক্ষণের পাশাপাশি সাংগঠনিক কাঠামোকে সক্রিয় রাখতে সচেষ্ট থাকতে হবে। জ্ঞান চর্চা ও আমলের ক্ষেত্রে সকলের চেয়ে দায়িত্বশীলদের অগ্রগামী থাকতে হবে। 

জেলা সহকারী সেক্রেটারি জাহিদুল ইসলামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত শিক্ষাশিবিরে আরো বক্তব্য রাখেন জেলা জামায়াতের সাবেক আমীর মাওলানা মোস্তাফিজুর রহমান, জেলা নায়েবে আমীর মাওলানা মুফতি হাবিবুল্লাহ, জেলা সেক্রেটারি এডভোকেট ফরিদ উদ্দিন ফারুকী, বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ ড. মাওলানা ছাবের আহমদ প্রমুখ। 

কাজী নজরুল ইসলামের জন্মবার্ষিকীতে চকরিয়ায় নিসর্গের সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা

কাজী নজরুল ইসলামের জন্মবার্ষিকীতে চকরিয়ায় নিসর্গের সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে চকরিয়ায় নিসর্গ সাংস্কৃতিক সংসদের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছে নজরুল সংগীত ও নাতে রাসুল (সাঃ) প্রতিযোগিতা-২০২৪। 

শনিবার (২৫ মে) সংগঠনটির সমন্বয়কারী মো. ইবরাহিমের সার্বিক তত্ত্বাবধানে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন নিসর্গের প্রধান উপদেষ্টা বিশিষ্ট সমাজসেবক মো. আরিফুল কবির। বিশেষ অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি গবেষক ফখরুল ইসলাম ও প্রভাষক মাহফুজুল করিমসহ বিশিষ্টজনেরা। 

অতিথিবৃন্দ কবি কাজী নজরুল ইসলামের কর্মময় জীবনের ওপর তাৎপর্যপূর্ণ আলোচনা শেষে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

সমাজে সুবিধা বঞ্চিতদের সফল অভিভাবক মানবিক সমাজকর্মী জান্নাতুল ফেরদৌস

সমাজে সুবিধা বঞ্চিতদের সফল অভিভাবক মানবিক সমাজকর্মী জান্নাতুল ফেরদৌস

বিশেষ প্রতিবেদক : 

অদম্য ইচ্ছাশক্তিই জান্নাতুল ফেরদৌসকে সমাজে পিছিয়ে পড়া অবহেলিত সুবিধা বঞ্চিত মানুষগুলোর সফল অভিভাবকে পরিণত করেছে। লেগে থেকে মানুষের কল্যাণের জন্য খাটতে পারাটাই তার স্বার্থকতা। তার কাছে মানবিক হয়ে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করাই ছিল উদ্দেশ্য লক্ষ্য। এমনই একজন কর্ম উদ্যোমী সংগ্রামী নারীর নাম ইসলামপুরের জান্নাতুল ফেরদৌস।

জন্ম ও পরিচয় : কক্সবাজারের নতুন উপজেলা ঈদগাঁও ইসলামপুর ইউনিয়নের বামনকাটা গ্রামে ১৯৭৯ সালে ১০জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন জান্নাতুল ফেরদৌস। তিনি স্থানীয় একটি মাদরাসা থেকে ১৯৯৩ সালে আলিম পাস করেন। সামাজিক ও পারিবারিক নানান বাধা বিপত্তির মুখেও তখন থেকে পরোপকারী মনোভাব পোষণ করেই চলতেন এই নারী। অন্যের ভালোতে তিনি মানসিক তৃপ্তি অনুভব করতেন। কম বয়সে ছোট খাটো সমাজসেবার মাঝপথে তিনি ১৯৯৯ সালে একই এলাকার সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারের এক সন্তানের সাথে বিবাহ বন্ধণে আবদ্ধ হয়ে সংসার জীবন শুরু করেন। 

অপরাজিতার সাথে যুক্ত ও প্রশিক্ষণ : ২০১৬ সালের তিনি অপরাজিতা প্রকল্পে যুক্ত হন। অপরাজিতার সাথে যুক্ত হওয়ার ফলে জান্নাতুল ফেরদৌস বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে থাকেন। 

প্রশিক্ষণ জ্ঞান কার্যক্রম বাস্তবায়ন:  প্রশিক্ষণ থেকে জ্ঞান লাভ করার ফলে একজন জনপ্রতিনিধি হয়ে সরাসরি মানুষের সেবা করার জন্য ২০১৬ সালের সংরক্ষিত আসনে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন করে বিজয় লাভ করেন। অপরাজিতার কাছ থেকে প্রশিক্ষণের পর তিনি সমাজের সুবিধা বঞ্চিত কারা তাদের জানতে পারেন। তার প্রথম টার্গেট ছিল ইউনিয়ন এবং উপজেলা পরিষদের সেবাপ্রদানকারীদের  সাথে সুসম্পর্ক গড়ে তোলা। অপরাজিতার বিভিন্ন সভা ও প্রশিক্ষণে তাদের সাথে পরিচয় হওয়ার সুযোগ হয়। যার ফলে তিনি তার তিন ওয়ার্ডে যারা বিভিন্ন সুবিধা থেকে বঞ্চিত আছে তাদের তালিকা করেন। তিনি স্থানীয় চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলে তাদেরকে সুযোগ-সুবিধা দেয়ার ব্যবস্থা করেন। যারা প্রতিবন্ধি তাদেরকে তিনি সবচেয়ে দুর্বল মনে করেন। তার পূর্বে যিনি জনপ্রতিনিধি ছিল তিনি সুবিধাবঞ্চিদের তেমন মূল্যায়ন করতেন না। ওইসব বৈষম্যমূলক আচরণের কথা মাথায় রেখে ঘুরে দাঁড়ানোর আশা জাগিয়ে তিনি ১০০জন প্রতিবন্ধীকে প্রতিবন্ধী ভাতা পাইয়ে দিতে সহযোগিতা করেন। তার এলাকায় প্রায় প্রতিবন্ধী এখন ভাতার আওতায় চলে এসেছে। তিনি ২০০ জন গর্ভবতী মহিলাকে গর্ভকালীন সেবা নিতে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্রে পাঠাতে সহযোগিতা করেন। জন কিশোরীদের টিটি টিকার আওতায় আনেন। ৬০০ জন শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল ও কৃমি নাশক ক্যাপসুল খাওয়াতে সহযোগিতা  করেন। ৪০ জন মহিলাকে মাতৃত্বকালীন ভাতা, ১৫ জন মহিলাকে বিধবা ভাতা, এলাকার অবকাঠামুগত উন্নয়নের জন্য ৭টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করেন। এইসব কাজ তিনি দক্ষতার সাথে করার জন্য  করার জন্য তিনি বর্তমানে ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান-২ এর দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও তিনি ইউনিয়ন পরিষদের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ক স্থায়ী কমিটির সভাপতি, স্থানীয় মাদরাসা পরিচালনা  কমিটির সভাপতি, কমিউনিটি ক্লিনিক পরিচালনা কমিটির সহ-সভাপতি, ইউনিয়ন অপরাজিতা নেটওয়ার্কের সভাপতি এবং উপজেলা ও অপরাজিতা নেটওয়ার্কের নির্বাহী সদস্য। 

পরিশেষে বলা যায় জান্নাতুল ফেরদৌস একজন অপরাজেয় নারী প্রতিনিধি। তিনি মনে করেন মানুষের সেবা করতে টাকা লাগেনা; মনের ইচ্ছা শক্তিই যথেষ্ট। তিনি মনে করেন; মানুষের সেবা করতে পারলে মনের মধ্যে আত্মতৃপ্তি পাওয়া যায়।